হবুহু মানুষের মতো সুরে ১৭ ধরণের শব্দে কথা বলে সকলকে অবাক করলো এই ময়না পাখি, নেটদুনিয়ায় ভাইরাল ভিডিও

0

নেটদুনিয়ায় বেশকিছু ভিডিও ভাইরাল হয় যেখানে আমরা দেখতে পাই অনেকের অবাক করা কিছু ঘটনা। এই সমস্ত ভিডিও বর্তমানে ইন্টারনেট দুনিয়ায় বেশ হৈচৈ সৃষ্টি করেছে।

আমরা জানি আমাদের বাড়িতে পালিত যেকোনো পশু বা পাখিরা বাড়ির একজন সদ্যসের তালিকায় পরে। আমরা তাদের বাড়ির সন্তানের চোখেই তাদের দেখি।

কোনো কাজ থেকে ফিরে এসেই সবার আগে তাদের সাথে আমরা সময় কাটাতে পছন্দ করি। তাদের যত্ন করা, খাওয়ানো , তাদের সাথে খুনসুটি করতে আমরা ভালোবাসি।

আর তারাও নিষ্পাপ মনে তার মনিবকে প্রাণ খুলে ভালোবাসি। এক কথায় বলতে গেলে, আমরা আমাদের পালিত এই অবলা প্রাণীদের আমরা একজন সন্তানের মতোই যত্ন করি।

আর মানুষের সাথে বন্ধুত্ব করতে খুবই ভালোবাসে এই পশু পাখিরা। খুব কম পাখি আছে যেমন টিয়া, কাকাতুয়া তারা মানুষের স্বর নকল করতে পারে।

কিন্তু বাকি পাখিদের নিজস্ব ডাক আছ। তার এই ভাষা হয়তো আমরা বুঝতে পারিনা কিন্তু তাদের মধ্যেও ভালোবাসার অনুভূতি কাজ করে।

কিন্তু এবার এক ট্যালেন্টেট পাখির সন্ধান মিলেছে। না কোনো বিরল পাখি নয় আমাদের চেনা পরিচিত শালিক পাখি। কিন্তু এই ছোট্ট শালিক যা করলো তাতে মেনে নিতেই হয় যে,

ঠিকমতোন প্রশিক্ষণ দিলে তারা সবরকম কাজ করতে পারে। কিন্তু কখনো ময়না পাখি কথা বলতে শুনেছেন ? যদি না শুনে থাকেন তাহলে আপনাদের জানিয়ে রাখি মানুষের মতো কথা বলতে পারে যে কয়টি পাখি,

পাতি ময়না তার মধ্যে অন্যতম। ময়না পাখির এ প্রজাতিটি তাই অনেকে শখ করে বাসাবাড়িতে পুষে থাকেন। পাহাড়-টিলা ঘেরা বনজঙ্গলে এ পাখি পাওয়া যায়।

এর বৈজ্ঞানিক নাম Gracula religiosa। যার অর্থ পবিত্র পাতিকাক। পাহাড়ি অঞ্চলে পাওয়া যায় বলে পাহাড়ি ময়না নামেও পরিচিত।

দৈর্ঘ্য প্রায় ২৯ সেন্টিমিটার, ডানা ১৭ সেন্টিমিটার, ঠোঁট ৩ সেন্টিমিটার, পা ৩.৫ সেন্টিমিটার, লেজ ৮ সেন্টিমিটার এবং ওজন ২১০ গ্রাম।

বেশিরভাগ প্রজাতির ময়নার আবাস দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়। বহু প্রজাতির ময়না উত্তর আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, ফিজি, দক্ষিণ আফ্রিকা প্রভৃতি দেশে অবমুক্ত করা হয়েছে।

শালিকের সাথে এরা অনেকটাই সম্পর্কিত। বেশিরভাগ ময়নার স্বরতন্ত্র জটিল প্রকৃতির বলে তারা বিভিন্ন শব্দ বা কথা সহজে অনুকরণ করতে পারে।

পাতি ময়না কথা বলা পাখি হিসেবে ব্যাপকভাবে পরিচিত। কালো বর্ণের এ পাখিটির শরীরের কিছু অংশ হলুদ। ঠোঁট কমলা-লাল। চোখের নিচে ও মাথার পেছনে হলুদ রঙের চওড়া রেখা রয়েছে।

এ রেখা ময়নাকে দিয়েছে দীপ্তিময় সৌন্দর্য। পাখিটি দেখতে যেমন সুন্দর, তেমনি মিষ্টি গলা। এদের খাদ্য তালিকায় রয়েছে রসালো ফল, ফুলের কুঁড়ি, মধু ও পোকামাকড়।

পোষা ময়না ভাতও খায়।ময়না পাখি সারা জীবন একজন সঙ্গীর সান্নিধ্যেই কাটায়। সঙ্গী না মারা যাওয়া পর্যন্ত ওদের সমপর্ক অটুট থাকে। এপ্রিল-জুলাই মাস প্রজনন মৌসুম।

এ সময় দু-তিনটি ডিম পাড়ে। যা ফুটতে সময় লাগে ১৪ থেকে ১৫ দিন। ছানারা উড়তে শিখলেই মা-বাবার কাছ থেকে আলাদা হয়ে যায়। মাঝে মধ্যেই সোশাল মিডিয়ায় বেশ কিছু ভিডিও ভাইরাল হতে থাকে।

এই তালিকায় ১৭ ধরনের শব্দ ও কথা বলতে পারা একটি পাহাড়ি ময়না কথা বলার ভিডিও নেট দুনিয়ায় ভাইরাল। ময়নারে মনের নানান রকম ভাবে ময়নারে কথা বলবে দেখিয়েছেন ভিডিওতে