এক মাসের ই’লেকট্রিক বি’ল দেখে হা’সপাতা’লে ভ’র্তি হলেন, ৮০ বছরের এই বৃ’দ্ধ

0

গ’তবছরের করো’না প’রিস্থিতির জ’ন্য যখন ডা’উন হয়েছিল সেই সময় আ’র্থিক দিক থেকে অনেক স’মস্যায় পড়তে হয়েছিল নানান মানুষকে।

একদিকে খা’দ্যের অ’ভাব অ’ন্যদিকে ঘ’টেছিল বে’কারত্বের সংখ্যা বৃ’দ্ধি, সমস্ত কিছু মি’লিয়ে যেন জ’নসাধারণের স্বা’ভাবিক জী’বনযাত্রা বি’ধ্বস্ত হয়ে গিয়েছিল।

তা’রপরে দেখা দিয়েছিল, ই’লেকট্রিক বিল সং’ক্রান্ত নানান স’মস্যা। মাঝে মাঝে খবরে প্র’কাশ হয়েছিল ই’লেক’ট্রিক বি’ল সং’ক্রান্ত স’মস্যা’গুলো,

যেখানে দেখা গিয়েছিল এ’কাধিক প’রিবারের প্রা’য় অনেক টা’কা করে আসতো যা নিয়ে সেই স’মস্ত প’রিবাররা অ’বাক হয়ে গিয়েছিল।

এই রকমই একটি প’রিস্থিতির শি’কার হল এক ৮০ বছরের বৃ’দ্ধ বি’দ্যুতের বি’ল দেখে যায় যায় অ’বস্থা হয় তার।

স্বা’ভাবিকভাবে আমাদের সকলেরই একটা নি’র্দিষ্ট বো’ধ থাকে যে কত বি’ল আসতে পারে এবং প্র’ত্যেক মা’সের বি’ল দেখেই আমরা বু’ঝতে পারি,

যে কতটা এ’মাউন্টের মধ্যে আমাদের মাসের ই’লেকট্রিক বি’ল থাকতে পারে সেই ধারণা যখন একেবারে বদলে যায় হয়ে যায় বি’পদ।

ম’ধ্যবিত্ত পরিবারের যখন হা’জারের ওপরে বি’ল আসে তখনই স্বা’ভাবিকভাবেই মাস খ’রচের ম’ধ্যে কিছুটা ব্য’বধান হয়,

সেখানে ৪০ ব’ছরের ব্য’ক্তির এক মাসের বি’ল এল প্রায় ৪০ কো’টি টা’কা, যা দেখে ওই বৃ’দ্ধ অ’বাক হয়ে পড়েন এবং তাকে চি’কিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয় একটি হা’সপাতালে।

এই রকম একটি ঘ’টনা ঘ’টেছে মহা’রাষ্ট্রের লা’লাসোপাড়া শহরে। জানা গেছে যে, ওই বৃ’দ্ধ ধা’নকল এর মালিক।

সোমবার দিন হ’ঠাৎই তে এসে পৌঁ’ছায় ই’লেকট্রিক বি’ল এবং সেখানে লেখা থাকে ৪০ কো’টি টা’কা।

প্রথমে তিনি ভে’বেছিলেন এটা হয়তো তাদের গো’টা জে’লার বি’ল কিন্তু যখন দেখলেন যে এই বি’লের শু’ধুমাত্র তার নাম লেখা তখনই তার র’ক্তচাপ বেড়ে গেল,

এবং এরকম প’রিস্থিতিতে তাকে সু’স্থ করার জন্য হা’সপাতালে ভ’র্তি করা হল। এই ঘ’টনাটি’রকে বি’শ্লেষণ করে,

স্টে’ট ই’লেকট্রি’সিটি ডি’স্ট্রিবিউ’শন কো’ম্পানি লি’মিটেড বলেছেন যে, হ’য়ত এ’টিতে কোন র’কম একটি ভু’ল হয়েছে।