কাতর হয়ে চাকরির আর্জি জানালেন এক অসহায় মহিলা, যত সম্ভব তাড়াতাড়ি কাজের ব্যবস্থা করলেন বিধায়ক রাজ চক্রবর্তী

0

টলিউডের জনপ্রিয় পরিচালক রাজ চক্রবর্তী। তিনি পরিচালনার পাশাপাশি এবারের নির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থী হয়েছেন।

ভোটের কাজে ব্যাস্ত থাকার ফলে বাড়ি ছেড়ে থাকতে হয়েছে ব্যারাকপুরে পরিচালক। স্ত্রী ও ছেলে ইউভান ও বিলাসবহুল বাড়ি ছেড়ে ভোট প্রচারের কাজে ব্যাস্ত ছিলেন।

২ রা মে রেসাল্টের পর মান রক্ষা করেছেন শুভশ্রীর কথার। অবশেষে নিজেকে জয়ী করেন পরিচালক। কিন্তু চারদিকে যে মারণ ভাইরাস করোনা গ্রাস করে নিয়েছে।

তাই বিধায়ক রাজ রাস্তায় মাস্ক ও স‍্যানিটাইজার বিলি করলেন পথে নেমে। এমনকি একজন বৃদ্ধা মহিলাকে তিনি মুখে মাস্ক পরিয়ে দিলেন।

রাজের এই কর্মকান্ড তাঁর ফ্যানপেজ থেকে শেয়ার করা হয়েছে। ভোটের আগে রাজ মানুষকে নানারকম প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কিন্তু শপথ নেওয়ার পড়তে নেমে পড়লেন কাজে।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর নির্দেশ অনুযায়ী প্রথম কাজ হিসেবে তিনি কোভিড মোকাবিলায় পদক্ষেপ নিলেন রাজ। কিছুদিন আগেও ব্যারাকপুরের ত্রাণ বিলি করেন রাজ।

সকলকে খাবার ও মাস্ক দেন। এবং আশ্বাস দেন তাদের সমস্ত ভালো মন্দ দেখার দ্বায়িত্ব তার নিজের। এরপরেই সোশ্যাল মিডিয়া মাধ্যম এক মহিলা আর্তি জানায় রাজের উদ্দেশ্যে যে তার কাজ চাই।

শ্যামনগরের বাসিন্দা ওই মহিলা রাজের কাছে চাকরি চান। ওই মহিলার নাম রীতা মজুমদার। তিনি রাজকে জানান যে তার স্বামীর ২ মাস ধরে কাজ নেই।

যদিও প্রোফাইলে ওই মহিলার নাম রীতা ঘোষ লেখা থাকে। রাজের কাছে এই মেসেজ আসা মাত্রই রাজ ওই অঞ্চলের বিধায়ককে জানান গোটা বিষয়,

এবং ওই মহিলার কাজের বন্দোবস্ত করেন। এদিন রাজ ট্যুইট করে জানান রীতার উদ্দেশ্যে, “হাই রীতা, আমি তোমাদের বিষয়টা তোমাদের বিধায়ক,

সোমনাথ শ্যামদাকে বলেছি, উনি খুব ভালো মানুষ, উনি বলেছেন দেখে নেবে”। রাজের এমন ধরনের প্রয়াসে পঞ্চমুখ আমজনতা।