তৃণমূলের বিরুদ্ধে সবর শ্রাবন্তী, বললেন একের পর এক বিস্ফোরক অভিযোগ

0

স্টাফ রিপোর্টার সুদীপ্তা দত্ত: কিছুদিন আগেই দেখা গিয়েছিল অভিনেত্রী শ্রাবন্তীর সাথে তার স্বামী রোশানের মত বিরোধ।

রোশান এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন যে তারা অনেকদিন ধরেই আলাদা রয়েছেন। শ্রাবন্তীকে অবশ্য এই সম্বন্ধে বলতে দেখা গিয়েছিল তাদের বৈবাহিক জীবনের হানিমুন পর্ব শেষ হয়ে গেছে।

তবে শ্রাবন্তী ও রোশানের বৈবাহিক সম্পর্কের শেষপর্যন্ত কি পরিনতি হবে তা এখনও প্রকাশ্যে আসেনি। অভিনেত্রীকে এখন স্টার জলসা সুপারস্টার পরিবারে অ্যাংকারিং করতে দেখা যায়।

অভিনেত্রী শ্রাবন্তী ইতিমধ্যে অনেক সিনেমার শুটিং শুরু করে দিয়েছে। সে তার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে খুবই ব্যস্ত শুটিং এর দ্বারা।

কোনরকম ছুটি নেই তার। তবে রোশানের সাথে সম্পর্কের কি পরিণতি হতে চলেছে সেই নিয়ে কোন খবর এখনো পর্যন্ত কিছুই জানা যায়নি।

তবে দুজনেই আলাদা থাকছেন এখন ইনস্টাগ্রামে দুজন দুজনকে আনফলো করে দিয়েছেন এবং সমস্ত ফটো ডিলিট করে দিয়েছেন নিজেদের সোশ্যাল হ্যান্ডেল থেকে।

প্রায়শই দেখা যায় দুজনকে সোশ্যাল মিডিয়ায় কিছু পোস্ট করতে। মাঝেমধ্যেই শ্রাবন্তী ও রোশানের দুজনের পোষ্টের মাধ্যমে ঠান্ডা লড়াই চলে।

কিন্তু অনেক দিন ধরে তারা একে অপরের থেকে আলাদা রয়েছে। অভিনেত্রী শ্রাবন্তী নিজের কাজ নিয়ে ব্যস্ত রোশান সেরকমভাবেই নিজের কাজ নিয়ে ব্যস্ত।

অভিনেত্রী কাঁধে উঠেছে আরো এক নতুন দায়িত্ব। সেই দায়িত্ব হলো সোনার বাংলা গড়ে তোলার দায়িত্ব মার্চ মাসে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে তিনি যোদ্ধা হিসেবে লড়বেন লড়বেন।

১০ই এপ্রিল থেকে শুরু হবে চতুর্থ দফার ভোট শুরু হবে। পশ্চিম বেহালার প্রার্থী হিসাবে লড়বেন অভিনেত্রী শ্রাবন্তী।

ইতিমধ্যে তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন অভিনেত্রী নানা ধরনের অভিযোগ তুলে ধরেছেন। অভিনেত্রীর মতে পশ্চিম বেহালার বিধানসভা কেন্দ্রের বিভিন্ন ক্লাবগুলিতে শাসকদল নিজেদের দলের লাভের জন্য দুষ্কৃতী পুষছে।

শুধুমাত্র অভিনেত্রী অভিযোগ জানিয়ে ক্ষান্ত থাকেনি গত ২রা এপ্রিল তিনি কমিশনের কাছে চিঠি লিখে পাঠিয়েছে এই বিষয়ে।

উল্টোদিকে ক্লাবের প্রতিপক্ষরা এই বিষয়ে বক্তব্য রেখেছেন তাদের মধ্যে অভিনেত্রী পশ্চিম বেহেলার প্রার্থী হয়ে দাঁড়ালো সে ক্লাব ও সংস্কৃতি ব্যাপারে কোনো খবরই রাখেননা।

এই বিষয়ে বেহারার পরিবেশ অত্যন্ত খারাপ হয়ে উঠেছে। অভিনেত্রী কমিশনকে চিঠিতে লিখেছেন ক্লাবের কয়েকজন দুষ্কৃতীকে পোষা হচ্ছে যাতে ভোটের সময় যাতে শান্তিতে ভোট হতে দেবেনা গন্ডগোল করবে।

এই সম্বন্ধে পার্থ চ্যাটার্জি বলেছেন আসলে অভিনেত্রী শ্রাবন্তি আগে থেকেই হেরে যাওয়ার ভয়ে হেরে যাওয়ার কারণ গুলোকে সাজিয়ে রাখছে।

যখন পশ্চিম বেহালায় ক্লাব গড়ে উঠেছিল তার পেছনে কারণ ছিল গুন্ডা মস্তানদের ওই অঞ্চল থেকে অপসারিত করা।

কোনভাবেই তৃণমূল তাদেরকে কোন অর্থ সাহায্য প্রদান করেনি। এইভাবে ক্লাবগুলোকে অপমান করা উচিত না অভিনেত্রী শ্রাবন্তীর উচিত ইতিহাস জেনে তারপরে কথা বলার।